রাম্বুটানঃ পুষ্টিগুণে ভরপুর ছোট এক দুনিয়া

রাম্বুটান (নেফেলিয়াম ল্যাপাসিয়াম) মূলত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার একটি ফল। গ্রীষ্মমন্ডলীয় জলবায়ুর দেশ, যেমন মালয়েশিয়া এবং ইন্দোনেশিয়ায় সাধারণত রাম্বুটান গাছ বেড়ে উঠতে দেখা যায় এবং এর উচ্চতা ৮০ ফুট (২৭ মিটার) পর্যন্ত হয়ে থাকে।

গল্ফ-বলের মতো আকৃতি এবং লাল-সবুজ লোমশ শেলের কারণে মালয় ভাষার চুল শব্দটি থেকে “রাম্বুটান” নামটি এসেছে। এটির এই অদ্ভুত অবয়বের সাথে সাধারণত সামুদ্রিক আর্চিনের তুলনা করা হয়।

খোসা ছাড়ানোর পর রাম্বুটান দেখতে অনেকটা লিচু এবং লংগন ফলের মতো। এর স্বচ্ছ সাদা মাংসল অংশটি মিষ্টি এবং বেশ ক্রিমি স্বাদের হয়ে থাকে এবং এর মাঝখানে একটি বীচি থাকে।

রাম্বুটান অত্যন্ত পুষ্টিকর একটি ফল যা ওজন হ্রাস থেকে শুরু করে হজমশক্তি বাড়ানোর মাধ্যমে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে থাকে।

এখানে রাম্বুটানের কয়েকটি প্রধান স্বাস্থ্য উপকারিতা দেয়া হলো –

প্রচুর এন্টি অক্সিডেন্ট ও পুষ্টি উপাদানে সমৃদ্ধ রাম্বুটানঃ

রাম্বুটান ফলটি প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, খনিজ এবং প্রয়োজনীয় সব পুষ্টি উপাদানে সমৃদ্ধ। প্রতি ৩.৫ আউন্স (১০০ গ্রাম) রাম্বুটান দৈনিক চাহিদার প্রায় ১.৩-২ গ্রাম ফাইবার সরবরাহ করে  যা আপনি সমপরিমাণ আপেল, কমলা বা নাশপাতিতে পাবেন।

এটি প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, যা আপনার শরীরকে খুব সহজেই ডায়েটরি আয়রন শোষণে সহায়তা করে। এই ভিটামিন এন্টি অক্সিডেন্ট হিসাবেও কাজ করে এবং আপনার দেহের কোষকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে। প্রতিদিন ৫/৬ টি রাম্বুটান ফল আপনার দৈনিক ভিটামিন সি এর ৫০% চাহিদা পূরণ করতে সক্ষম।

রাম্বুটানে যথেষ্ট পরিমাণে তামা রয়েছে, যা আপনার হার্ট, মস্তিষ্ক এবং হাড় গঠন এবং রক্ষণাবেক্ষণে যথাযথ ভূমিকা রাখে।

এটিতে অল্প পরিমাণে ম্যাঙ্গানিজ, ফসফরাস, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন এবং দস্তাও রয়েছে। ৩.৫ আউন্স (১০০ গ্রাম) – বা প্রায় চারটি রাম্বুটান ফল আপনার দৈনিক তামার চাহিদার ২০% এবং অন্যান্য পুষ্টির দৈনিক চাহিদার ২-৬% পূরণ করবে।

রাম্বুটানের খোসা এবং বীচি পুষ্টি, এন্টি অক্সিডেন্টস এবং অন্যান্য উপকারী যৌগগুলির সমৃদ্ধ উৎস বলে মনে করা হয়। যদিও কিছু মানুষ এগুলি খায় তবে বর্তমানে এগুলি কে ভোজ্য হিসাবে বিবেচনা করা হয় না। কেননা, এগুলিতে আবার এমন কিছু যৌগ রয়েছে যা মানুষের পক্ষে বিষাক্ত হতে পারে।

বীজ ভাজলে এই বিষাক্ত প্রভাবগুলি কমে যেতে পারে। এবং কিছু সংস্কৃতির ব্যক্তিরা এভাবেই বীজ ভেজে খেয়ে থাকেন করে বলে মনে হয়। তবে সঠিকভাবে ভাজার পদ্ধতি সম্পর্কে নির্ভরযোগ্য তথ্য এখনো পাওয়া যায়নি। তাই বীজ বা খোসা না খাওয়াই সবচেয়ে নিরাপদ।

রাম্বুটান হজমশক্তি বাড়ায়ঃ

রাম্বুটান তার ফাইবার সামগ্রীর কারণে হজম প্রক্রিয়ার সহায়ক হিসাবে অবদান রাখতে পারে।
এর মাংসল অংশে থাকা ফাইবারের প্রায় অর্ধেকই অদ্রবণীয়, যেটি এটি আপনার অন্ত্রে সক্রিয় অবস্থায় থাকে।
অদ্রবণীয় ফাইবার আপনার অন্ত্রের মধ্যকার কণাগুলির গতি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে, ফলে আপনার কোষ্ঠকাঠিন্যের সম্ভাবনা হ্রাস পায়।

ফাইবারের বাকি অর্ধেক দ্রবণীয়। দ্রবণীয় ফাইবার আপনার উপকারী অন্ত্র ব্যাকটেরিয়ার জন্য খাদ্য সরবরাহ করে।
এই বন্ধুত্বপূর্ণ ব্যাকটিরিয়াগুলি অ্যাসিটেট, প্রোপিওনেট এবং বুটাইটের মতো শর্ট-চেইন ফ্যাটি অ্যাসিড তৈরি করে, যা আপনার অন্ত্রের কোষগুলিকে খাদ্য সরবরাহ করে।
এই শর্ট-চেইন ফ্যাটি অ্যাসিডগুলি জ্বালাপোড়া কমাতে এবং জ্বালাময়ী আন্ত্রিক সিন্ড্রোম (আইবিএস), ক্রোণ ব্যাধি এবং আলসারেটিভ কোলাইটিস সহ অন্ত্র ব্যাধিগুলি প্রতিরোধে সহায়তা করে।

রাম্বুটান ওজন কমাতে সাহায্য করেঃ

বেশিরভাগ ফলের মতোই, রাম্বুটান ওজন বৃদ্ধি রোধ করে সময়ের সাথে সাথে ওজন হ্রাস করতে সহায়তা করে। প্রতি ৩.৫ আউন্স (১০০ গ্রাম) রাম্বুটানে প্রায় ৭৫ ক্যালোরি শক্তি এবং ১.৩-২ গ্রাম ফাইবার রয়েছে।সরবরাহকৃত ফাইবারের তুলনায় এটি কম ক্যালরিযুক্ত হয়ে থাকে।

এটি আপনাকে দীর্ঘসময় ধরে পেট ভরিয়ে রাখতে সহায়তা করে, যা আপনার অতিরিক্ত খাওয়ার সম্ভাবনা এবং সময়ের সাথে সাথে ওজন হ্রাস করতেও সহায়তা করে।
এছাড়াও রাম্বুটানের দ্রবণীয় ফাইবারগুলি পানিতে দ্রবীভূত হয়ে থাকে এবং পেটে জেল জাতীয় একপ্রকার পদার্থ তৈরি করে যা হজম প্রক্রিয়া এবং পুষ্টির শোষণকে ধীর করতে সহায়তা করে। ফলে দীর্ঘসময়ের জন্য ক্ষুধা নিবারিত হয়ে থাকে।

সর্বপরি, রাম্বুটানে প্রচুর পরিমাণে পানি থাকে যা আপনাকে হাইড্রেটেড রাখতে সহায়তা করবে এবং অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণ ও ওজন বৃদ্ধি রোধে সাহায্য  করবে।

রাম্বুটান ইনফেকশন থেকে রক্ষা করেঃ

রাম্বুটান ফলটি বিভিন্ন উপায়ে জীবাণুর বিরুদ্ধে শক্তিশালী প্রতিরোধ গড়ে তুলতে অবদান রাখে।
এটি প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, যা আপনার দেহের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য প্রয়োজনীয় শ্বেত রক্তকণিকা উৎপাদনে সহায়তা করে। ভিটামিন সি এর অভাবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে পড়ে, ফলে আপনার ইনফেকশনের ঝুঁকি অনেকাংশে বেড়ে যায়।

এছাড়াও, রমবুটানের খোসা বহু শতাব্দী ধরে ইনফেকশন থেকে রক্ষা পেতে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। টেস্ট-টিউব সমীক্ষায় দেখা যায় যে এতে এমনকিছু যৌগিক উপাদান রয়েছে যা শরীরকে ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করতে পারে।
তবে কিছুসংখ্যক মানুষ খোসা খেয়ে থাকলেও এটি সাধারণত অখাদ্য বলেই বিবেচিত হয়।

রাম্বুটানের অন্যান্য উপকারীতাঃ

রাম্বুটান আরো কিছু কিছু ক্ষেত্রে বেশ উপকারী। বিশেষ কিছু রিসার্চের ভিত্তিতে কয়েকটি উপকারীতা এখানে দেওয়া হলো –

ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারেঃ কয়েকটি কোষ এবং প্রাণী গবেষণায় দেখা গেছে যে রাম্বুটানের যৌগগুলি ক্যান্সারের কোষগুলির বৃদ্ধি ও বিস্তার রোধ করতে সহায়তা করতে পারে।

হৃদরোগ থেকে রক্ষা করতে পারেঃ একটি প্রাণী গবেষণায় দেখা গেছে যে, রাম্বুটানের খোসা থেকে তৈরি এক্সট্রাক্টগুলি ডায়াবেটিক ইঁদুরের মোট কোলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা হ্রাস করে।

ডায়াবেটিস থেকে রক্ষা করতে পারেঃ কোষ এবং প্রাণী গবেষণায় দেখা গেছে যে, রাম্বুটান খোসা থেকে তৈরি এক্সট্রাক্টগুলি ইনসুলিনের সংবেদনশীলতা বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং রক্তের শর্করার দ্রুত বৃদ্ধি এবং ইনসুলিনের প্রতিরোধশক্তি কমিয়ে দিতে পারে।

সত্যিকার অর্থে, এই তিনটি অতিরিক্ত উপকারিতা  সাধারণত রাম্বুটান খোসা বা বীজের মধ্যে পাওয়া যৌগগুলির সাথে সম্পৃক্ত – যা সাধারণত মানুষ গ্রহণ করে না।
তাছাড়া, এর মধ্যে বেশিরভাগ সুবিধা কেবলমাত্র সেল এবং প্রাণী গবেষণায় লক্ষ্য করা যায়। মানুষের জন্য সঠিকভাবে আরও গবেষণার প্রয়োজন।

সর্বপরি, রাম্বুটান যথেষ্ট পুষ্টিকর একটি ফল যা কম ক্যালোরিযুক্ত এবং এটি আপনার হজমশক্তি ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে এবং ওজন হ্রাসে সহায়তা করতে পারে।
এমনকি এটি স্পার্মের মান উন্নয়ন করে এবং শুষ্ক ঠোঁট কিংবা চুল ও ত্বকের জন্যও যথেষ্ট উপকারী।

রাম্বুটান ফল হিসাবেই যথেষ্ট জনপ্রিয়। কিন্তু সালাদ, কারি কিংবা মিষ্টি জাতীয় খাবারে মিষ্টি স্বাদ যুক্ত করতেও এটি ব্যাবহার করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

My Rewards